July 19, 2024, 9:58 am
শিরোনাম
“ছত্র” বাঘায় একটি বিদেশি পিস্তলসহ ২ জন কুখ্যাত অস্ত্র ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ভূমি সেবায় বিশেষ অবদানে কবি কাজী নজরুল ইসলাম গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড পেল মো: এরফান উদ্দীন জা‌মিয়া দারুল কুরআন, সি‌লেটের গিনেস রেকর্ডের অধিকারী অ‌লি খানকে বিশাল সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত সিরাজগঞ্জ তাড়াশে কাপড়ে মোড়ানো এক নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার প্রবাসীরা আমাদের শক্তি, তারাই দেশের অর্থনীতির অন্যতম চাবিকাঠি-মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী মাননীয় রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনের সাথে এনআরবি ওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি দলের সৌজন্য সাক্ষাৎ বিসিএ ফাউন্ডেশন ইউকে উদ্যোগে সিলেট বিভাগে বন্যাকবলিতদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ তরুণ নারী উদ্যোক্তাদের জন্য অনুপ্রেরণা এবং সহযোগিতার এক অনন্য সভা অনুষ্ঠিত বোরহানউদ্দিনে রথযাত্রা উদযাপন

বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের দর্শন ও আদর্শ ছিল, অভিন্ন ও অবিচ্ছেদ্য

স্টাফ রিপোর্টার

একটি ঘুমন্ত জাতিকে কবিতা,গান, নাটক, প্রবন্ধ ও বহবিধ লেখনি ও কথায় মুক্তি ও স্বাধীনতার জন্য জাগিয়ে তুলেছিলেন বিদ্রোহী কবি, প্রেমের কবি, সাম্যের কবি, মানবতার কবি, নারী জাগরণের কবি, সুফি কবি কাজী নজরুল ইসলাম। তাঁর লেখনী, গান ও কবিতা স্বাধীন বাংলা বেতারের শিল্পীদের কন্ঠে ধ্বনিত হতো, মুক্তিযুদ্ধাদের সাহস ও শক্তি যোগাতো। ১৯৭১ এর ২৫ মে জাতীয় কবির শুভ জন্মদিনে উদ্বোধন করা হয়েছিল স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের। তার লেখা গান আমাদের রণ সংগীত, তাঁর বাণী জয়বাংলা শ্লোগান আজ জাতীয় শ্লোগান। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা আর তিলে তিলে ত্যাগ তিতিক্ষা, মেধা শ্রম ও দূরদর্শী নেতৃত্বের মধ্যে দিয়ে একটি স্বাধীন ভুখন্ডের তথা লাল সবুজের পতাকার শ্রষ্ঠা হলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ৭ মার্চের ভাষণ ও বিদ্রোহী কবিতার মুল প্রতিপাদ্য একই। দু’জনই শোষণ , জুলুম নির্যাতন অত্যাচারের বিরুদ্ধে, সাম্য সম্প্রীতি, মনুষ্যত্ব ও মানবতার জয় গান গেয়েছেন।
চির উন্নত মম শির ও দাবায়ে রাখতে পারবা না, যেন একই সুত্রে গ্রথিত। জাতীয় কবি ও জাতির জনক।
বিদ্রোহী হতে বিদ্রোহ শীর্ষক নজরুলীয় আড্ডায় বক্তাগন একথা গুলোই বললেন আবেগ আর দৃঢ়তায়।
বঙ্গবন্ধু কালচারাল ফাউন্ডেশনের ও বিদ্রোহী The Nazmul Centre এর আয়োজন জাতির পিতা ও জাতীয় কবি, বিদ্রোহী হতে বিদ্রোহ শীর্ষক আলোচনা সভা ও জমজমাট নজরুলীর আড্ডা ২৪ জুন ২০২৪ সোমবার বিকেল ৫. ০০ ঘটিকায় উত্তরা মডেল টাউনস্থ নুর ক্যাফে এন্ড চাইনিজ রেস্তোরাঁয় অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন
কাজী নজরুল সুফি সোসাইটির নির্বাহী চেয়ারম্যান, গ্লোবাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য এমিরেটাস অধ্যাপক ডক্টর আনিসুজ্জামান, প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ এর সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এমজেএফ, উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সংস্কৃতজন বিদ্রোহী The Nazmul Centre এর চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আতা উল্লাহ খান।
বঙ্গবন্ধু কালচারাল ফাউন্ডেশনের সভাপতি, বিশিষ্ট গণমাধ্যম ও সাস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আলহাজ্ব মোহাম্মদ শাহ আলম এর সভাপতিত্বে ও সংগঠন এর সাধারণ সম্পাদক এম এ আলম সবুজ এর প্রাঞ্জল উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায়
মুল প্রসঙ্গ উপস্থাপন করেন বরেণ্য নজরুল গবেষক, শিক্ষাবিদ ও রাস্ট্র চিন্তক নজরুল সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক প্রফেসর ডক্টর শহীদ মনজু, -জাতীয় কবির সেই অমোঘ বানী-“এক হয়ে যখন বাংগালী বলবে , বাংলা বাঙালির হোক -বাংলার জয় হোক। সেদিন অসাধ্য সাধন হবে! ”
এই অসাধ্য সাধন হলো জাতির জনক বংগবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে – জয়বাংলা।
ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন মাসিক ব্যাংক সমাচার এর প্রধান সম্পাদক,সাবেক ব্যাংকার, শিক্ষা ও সংস্কৃতিনুরাগী মোঃ ফজলুল হক। নজরুলীয় আড্ডায়
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ শ্রমজীবী- কর্মজীবী- পেশাজীবি-ঐক্যজোট এর আহবায়ক, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ঢাকা ৮ আসনের সাবেক সাংসদ সদস্য পদপ্রার্থী আলহাজ্ব এম এ ইউসুফ, বরেণ্য নজরুল গবেষক ও রাস্ট্র চিন্তক মোঃ মাহবুবুর রহমান, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, ইসলামী চিন্তাবিদ ও মানবাধিকার ব্যক্তিত্ব হযরত মাওলানা মাসউদুর রহমান বিক্রমপুরী, জাতীয় নারী সাহিত্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কবি ও কথাসাহিত্যিক নাসরিন ইসলাম শেলী, কবি নেক পারভীন লায়লা, প্রফেসর ডক্টর মোঃ জাকির হোসাইন তালুকদার, প্রফেসর ডক্টর হানিফ খান, ইসমাইল সিকদার, মোঃ শওকত আকবর, রোমিও রানা, হাবীব রাজা, সাইফুল ইসলাম, আবু বক্কর সিদ্দিক,
কবি জেসমিন৷ নুর প্রিয়াংকা, আফরোজা পারভীন, নজরুল সংগীত শিল্পী মাহবুবা মীনা, তছিরুল ইসলাম, বাচিক শিল্পী মনজিল নাহার মুক্তা, নারী নেত্রী বিথি মোস্তফা, রুবিনা আখতার, ফরহাদ হোসেন প্রমূখ। কথা কবিতা, আবৃত্তি ও নজরুল সংগীত পরিবেশনার মধ্যে দিয়ে নজরুলীয় আড্ডা প্রাণবন্ত হয়ে উঠে।
বিদ্রোহী থেকে বিদ্রোহ কিভাবে আমাদের স্বাধীনতার নিয়ামক হলো তার দিশা ধরিয়ে দিলেন আড্ডার সভাপতি জনাব শাহ আলম। নজরুলীয় আড্ডায় এ এক বিস্ময়কর অনুভূতি অনুভব।জতির জনক জাতীয় কবিকে স্পর্শের অনুভূতি।
বিশেষ করে বাংলাদেশের আইডেন্টিটি তথা তার আসল পরিচয়টাকে ঐতিহাসিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও নৃতাত্ত্বিক দিক থেকে উদ্ঘাটন করার চেষ্টা করা হয়েছে পুরো অনুষ্ঠান জুড়ে।প্রিয় বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্রষ্টার প্রতি গভীর শ্রদ্ধান্জলী- শোক ও শক্তির আশাজাগানিয়া উচ্চারণই ছিল সব আলোচকের মূল প্রতিপাদ্য।আশাবাদ ব্যক্ত করাহয়, আজকের নজরুলীয় আড্ডার এ আয়োজন আমাদের বোধ চিন্তা ও ভাবনাকে বংগবন্ধু ও নজরুলীয় চেতনায় নতুন করে উস্কে দিবে, চ্যালেঞ্জ করবে এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভবিষ্যৎ রূপরেখার চির উন্নত শিরের ইশারা দিবে।
এসময় বক্তারা বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এবং জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ও মহান স্বাধীনতা মুক্তির সংগ্রামের তাৎপর্য নিয়ে আলোচনা করেন।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণার পর মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে নজরুল ইসলামের অনুপ্রেরণাদায়ক লেখনীর প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করেন বিজ্ঞ আলোচকরা। বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন হবার পর জাতীয় কবিকে সম্মান প্রদান করে বাংলাদেশে পরম সম্মানে নিয়ে আসেন। বঙ্গবন্ধু কবিকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মান জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page